🇧🇩গোবিন্দগঞ্জে প্রতিমা ভাংচুর।। জড়িত দুর্বৃত্ত গ্রেফতার উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন🇧🇩

0
5

শাহীন খন্দকার✍️
গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার তালুককানুপুর ইউনিয়নের দামোদরপুর গ্রামে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ৪টি পারিবারিক পূজা মন্ডপে হামলা করে প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় জড়িত দুর্বৃত্ত আরিফুল ইসলামকে হাতে নাতে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। স্থানীয়রা জানায়, গেল রাত দশটার দিকে উপজেলার তালুককানুপুর ইউনিয়নের দামোদরপুরের কানুপুর গ্রামে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ৪টি পারিবারিক পূজা মন্ডপে আরিফুল ইসলাম নামে এক দুর্বৃত্ত ধারালো ছুরি নিয়ে হামলা করে প্রতিমা ভাংচুর করলে স্থানীয় এলাকাবাসী দেখে ফেলে তাকে হাতে নাতে আটক করে জরুরী সেবা ৯৯৯ এ কল করে।খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। পূজা মন্ডপে হামলা,প্রতিমা ভাংচুরের খবর পেয়ে আজ সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জননেতা আব্দুল লতিফ প্রধান, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আরিফ হোসেন,গোবিন্দগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ ইজার উদ্দিন, তালুককানুপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মাষ্টার, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক পৌর প্যানেল মেয়র-২ রিমন কুমার তালুকদার, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্নঃ সাধারন সম্পাদয় জয় কুমার,ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম লিচুসহ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠন,সনাতন ধর্মালম্বীর নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এঘটনায় গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জননেতা আব্দুল লতিফ প্রধান তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন,
এ ঘটনায় জড়িত দুবৃর্ত্ত আরিফুলের দৃষ্টান্ত মুলক বিচার হবে বলে আশ্বাস্ত করেন। তিনি সনাতন ধর্মালম্বীদের উদ্দেশ্যে বলেন, এ দেশের সফল রাষ্ট্রনায়ক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে দেশের সকল প্রশাসন যন্ত্র আপনাদের পাশে আছে। আমরা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ আপনাদের পাশে আছি। তাই দেশে সম্পৃতি বজায়ে রয়েছে। আমরা সবাই একসাথে বসবাস করছি। তাই এ দেশে সম্পৃতি বিনষ্ট কারীর স্থান হবে না।
গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফ হোসেন ও অফিসার ইনচার্জ ইজার উদ্দিনও তার বক্তব্যে এঘটনায় জড়িত ব্যক্তির কঠোর শাস্তি এবং এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে নেপথ্যে কেউ থাকালে তাকেও আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান। পরে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ৪টি পূজা মন্ডপের উন্নয়নের জন্য ১০হাজার করে নগদ ৪০ হাজার টাকা অর্থসহায়তা প্রদান করেন।