🇮🇳কথায় গানে রবীন্দ্র জয়ন্তী🇮🇳

0
7


বিশ্বেশ্বর মহাপাত্র✍️
পশ্চিম মাশুড়িয়া,পূর্ব মেদিনীপুর -৭২১৪৫৮

অস্থির আগুন রঙা বসন্তের কুসুমকীর্ণ পথে চলা ক্লান্ত বছরটা যখন কালবৈশাখীর দাপটে দীর্ণ বিদীর্ণ হয়ে খোঁজে শান্তির আশ্রয়।নব পল্লবের উপপ্লবে বিভোর হয়ে আবাহন করে এক অনাগত বছর কে গানে গানে

এসো, এসো, এসো হে বৈশাখ।

তাপসনিশ্বাসবায়ে মুমূর্ষুরে দাও উড়ায়ে,

 বৎসরের আবর্জনা দূর হয়ে যাক॥

যাক পুরাতন স্মৃতি, যাক ভুলে-যাওয়া গীতি,

 অশ্রুবাষ্প সুদূরে মিলাক॥

 মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা,

 অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা।

রসের আবেশরাশি শুষ্ক করি দাও আসি,

 আনো আনো আনো তব প্রলয়ের শাঁখ।

 মায়ার কুজ্ঝটিজাল যাক দূরে যাক॥

তখন সেই আবাহনে আর এক প্রানের ঠাকুরের আবাহনও শুরু হয়ে যায় আমাদের মন মন্দিরের পূজা বেদীতে।তিনি আর কেউ নন তিনি সবার হৃদয়ের রবীন্দ্রনাথ।তিনি সবাকার চিন্তা চেতনার পথ প্রদর্শক আমাদের অনাগত ভবিষ্যতের স্বর ও অতিতের ঐতিহ্য।তার সেই সাহিত্য রসে সিঞ্চিত হয়ে আজ তাঁর জন্মের ১৬১তম জয়ন্তীতে করি তারই গানে পূজার আয়োজন-

হে নূতন,

           দেখা দিক আর-বার জন্মের প্রথম শুভক্ষণ ।।

           তোমার প্রকাশ হোক কুহেলিকা করি উদঘাটন

                          সূর্যের মতন ।

           রিক্ততার বক্ষ ভেদি আপনারে করো উন্মোচন ।

                    ব্যক্ত হোক জীবনের জয়,

           ব্যক্ত হোক তোমামাঝে অসীমের চিরবিস্ময় ।

           উদয়দিগন্তে শঙ্খ বাজে,  মোর চিত্তমাঝে

                   চিরনূতনেরে দিল ডাক

                         পঁচিশে বৈশাখ ।।